Take a fresh look at your lifestyle.

চাঁদপুরে বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে রাত্রিযাপন: প্রেমিক পলাতক, প্রেমিকার অনশন

0

মাহফুজুর রহমান, চাঁদপুর প্রতিনিধি: চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলায় বিয়ের দাবিতে পাঁচ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করেছে ৮ম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রী। ৯ম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্র নকিব ও তার পরিবার এর আগেই বাড়িতে তালা মেরে গাঁ ঢাকা দিয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়।

রোববার (২৮ মার্চ) উপজেলার বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের দিগছাইল গ্রামের বাড়ি থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। সুইটি পাশ্ববর্তী সোনাইমুড়ী গ্রামের মেয়ে। পরে ওই ছাত্রী প্রেমিকের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। তারা উভয়েই বেঁলচো উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

অনশনকারী ছাত্রী অভিযোগ করে বলেন,’ওর সাথে আমার ৪ মাসের রিলেশন। সে আমার মাথা ছুঁয়ে কসম কেটে আমাকে বলেছে বিয়ে এবং সংসার করবে। ‘এই বলে সে আমাকে সুকৌশলে ধর্ষণ করেছে। এখন আমি তাকে বিয়ে করতে না পারলে আত্নহত্যা ছাড়া কোন উপায় নেই’।

অনশনকারী ছাত্রী জানায়, গত ১৮ মার্চ একই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ওই ছাত্রের সঙ্গে চট্টগ্রামে গিয়ে একটি হোটেলে পাঁচ দিন ছিল তারা। সেখান থেকে ওই ছাত্রের মামা তাদের দুইজনকে বিয়ে দেবে বলে হাজীগঞ্জ বাজারে নিয়ে আসেন। কিন্তু হাজীগঞ্জ বাজারে আসার পর ওই কিশোর প্রেমিক ও তার মামা ছাত্রীকে একা রেখে পালিয়ে যায়। এরপর থেকে মেয়েটি প্রতিদিন সকালে তার প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে বাড়ির বারান্দায় বসে অনশন করে।

অনশনের প্রথম দিন থেকেই ওই কিশোরের মাসহ স্বজনরা পালিয়ে যায়। তারপরও নাছোড়বান্দা ছাত্রী ওই বাড়িতে টানা পাঁচ দিন অনশন করে। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

তবে এ ঘটনার বিষয়ে গত ২১ মার্চ থেকে ওই কিশোর প্রেমিক নিখোঁজ বলে তার মা হাজীগঞ্জ থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেন।

স্থানীয়রা জানান, ‘মেয়েটির অনশনের ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও মেম্বার ছুঁটে গিয়ে জিজ্ঞেস করলে মেয়েটি বলে যেই ছেলে আমাকে বিয়ের প্রলভোনে ধর্ষণ করেছে তাকে ছাড়া আমি উঠবো না, নতুবা আমি আত্নহত্যা করবো।’

মেয়ের বোন লিপি জানায়, ‘বোন যেহেতু এখন আর বাড়িতে উঠতে পারবে না। আর কোথাও যাওয়ার পথও খোলা নাই। তাই যেই ছেলের সাথে আমার বোন গেছে ওই ছেলেকেই নিতে হবে।

ছেলের মামা সোহাগ জানায়, মেয়েটিকে দিয়ে তার বড় বোন লেলিয়ে দিয়ে আমাদের মানহানির চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

হাজীগঞ্জ থানার ওসি মো. হারুনুর রশীদ বলেন, ধর্ষণের মামলা নেয়া হয়েছে। মেয়েটির অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত কাজ চলছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.