তাহমিনার সব শেষ করে দিল পরকীয়া

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

গৃহবধূ তাহমিনা আক্তার। দুই সন্তানের জননী। প্রেমে পড়ে দুই সন্তানকে ঘরে রেখে পালিয়ে গেছেন প্রেমিক নূর মিয়ার সঙ্গে। এ ঘটনার পর তাকে তালাক দেন স্বামী সৌদি প্রবাসী।

জানা যায়, মোবাইল ফোনের ইমোতে একই এলাকার আরেক সৌদি প্রবাসী নূর মিয়ার সঙ্গে পরিচয় হয় তাহমিনার। এরপর থেকে নূর মিয়ার সঙ্গে প্রেম গড়ে উঠে। সেই প্রেমের সূত্র ধরে সম্প্রতি দেশে আসা নূর মিয়ার সঙ্গে সন্তান, স্বামীর ঘর ছেড়ে পালিয়েছিলেন তাহমিনা আক্তার। পরে স্থানীয় ব্যক্তিত্বরা বিষয়টি মীমাংসার উদ্যোগ নেন। কিন্তু এতে লাভ হয়নি বরং তাহমিনার ঠাঁই হয়েছে নিরাপত্তা হেফাজতে। সেখান থেকে মুক্ত হওয়ার পর এখন স্বামীর ঘরে সন্তানদের সঙ্গে বসবাসের চেষ্টা চালাচ্ছেন তাহমিনা।

ksrm
সিলেট শহরতলীর কেমিদপুরে তাহমিনা আক্তারের স্বামীর বাড়ি। তাহমিনারের নিজের বাড়ি সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, তাহমিনার প্রেমের সম্পর্ক জানতো না কেউ। গত ৯ জানুয়ারি হঠাৎ করে স্বামীর ঘর থেকে দুই সন্তানকে রেখে নিখোঁজ হয় তাহমিনা আক্তার। এ নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন ওই প্রবাসীর মা। তারা খোঁজখবর নিয়েও তাহমিনার ব্যাপারে তথ্য জানতে পারেননি। তাহমিনা নিখোঁজের ঘটনার পর শাশুড়ি সিলেটের জালালাবাদ থানায় জিডি দায়ের করেন।

পরে জানা যায়, সৌদিফেরত প্রেমিকের সঙ্গেই ঘর ছেড়েছে তাহমিনা। নূর মিয়ার হাত ধরেই সে স্বামীর ঘর ও সন্তানদের ছেড়ে পালিয়েছিল। নূর মিয়ার পরিবার তাহমিনাকে স্বামীর ঘরে পাঠিয়ে দেন। কিন্তু তাহমিনাকে আর ঘরে তুলতে রাজি হননি শাশুড়ি। বরং তিনি তাহমিনার বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ তুলে জালালাবাদ থানায় অভিযোগ দাখিল করেন।

পরে তাহমিনা আশ্রয় নেন স্থানীয় মোগলগাঁও ইউপি মেম্বার বাবুল মিয়া ও ফজলু মিয়ার কাছে। দীর্ঘ ২১ দিন দুই মেম্বারের জিম্মা শেষে অবশেষে গত ১ ফেব্রুয়ারি রাতে ফিরে যান স্বামীর বাড়ি। কিন্তু এর আগেই স্বামী তাকে তালাক দেন। খবর পেয়ে পুলিশও যায় সেখানে। পরে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। সব কূল হারানো তাহমিনাকে শেষে আদালতের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়া হয় নিরাপত্তা হেফাজতে।

গত বৃহস্পতিবার বোনের জিম্মায় মুক্তি পেয়েছেন তাহমিনা আক্তার। তার স্বজনরা জানিয়েছেন, তামান্না আক্তারের ঘটনা থেকে তার শাশুড়ি ফায়দা লুটছে। মা থেকে দুই সন্তানকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে। এটি কোনো ভাবেই উচিত হচ্ছে না।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.