Take a fresh look at your lifestyle.

স্বামীর বন্ধুর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা, চুল কেটে পরানো হলো জুতার মালা

0

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় অনৈতিক কাজের অভিযোগ এনে এক নারী ও পুরুষের চুল-ভ্রু কেটে দিয়েছে গ্রাম্য মাতব্বররা। ওই ঘটনার ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রকাশ পেলে এলাকায় চাঞ্চল্য তৈরি হয়। বুধবার (১৭ মার্চ) রাতে শৈলকুপা উপজেলার আবাইপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এরপর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

প্রতিবেশী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হৃদয় ও বিপ্লব (ছদ্মনাম) পরস্পর বন্ধু হওয়ায় প্রায়ই হৃদয় বিপ্লবের বাড়িতে যাওয়া-আসা করতেন। একপর্যায়ে বিপ্লবের স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন হৃদয়। গত বুধবার রাতে বিপ্লবের বাড়িতে তার স্ত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায় স্থানীয়রা তাদের আটকে রাখেন। পরে বিষয়টি সালিসে মীমাংসার কথা জানান গ্রামের মাতব্বররা।

সালিসে পরকীয়ায় লিপ্ত যুগলের ভ্রু ও মাথার চুল কাটার সিদ্ধান্ত নেন মাতব্বরা। তারা বিপ্লবকে তার বন্ধু হৃদয় ও তার স্ত্রীর চুল কেটে ফেলার নির্দেশ দেন। বিপ্লব এ কাজ না করলে তার (বিপ্লব) বাড়ি-ঘরে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন মাতব্বরা। পরে বিপ্লব তাদের কথামতো কাজ করেন। এ ছাড়া জুতার মালা পরিয়েও তাদেরকে এলাকায় জনসম্মুখে ঘোরানো হয়।

ঘটনার দিন রাত ২টা পর্যন্ত ভুক্তভোগীদের অভিভাবকরা না আসায় দুজন রাতেই এলাকা ত্যাগ করেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তবে তারা এখন কোথায় আছে কোনো পরিবারই তা জানেন না বলে জানা গেছে।

বিপ্লবের মা জানান, সালিসে সিদ্ধান্ত হয় বিপ্লব তার স্ত্রীর মাথার চুল, ভ্রু কেটে গ্রাম ছাড়া না করলে বিপ্লবকে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না। তাই তার ছেলে তার স্ত্রীর মাথার চুল, ভ্রু কেটে ফেলেন। এ ছাড়া গলায় জুতার মালা পরিয়ে বাড়ি ছাড়া করেন।

স্থানীয় মাতব্বর রবিউল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিবেশীরা আপত্তিকর অবস্থায় হৃদয় ও বিপ্লবের স্ত্রীকে ঘরে আটকানোর পর খবর দেয়। পরে তারা সালিসে সিদ্ধান্ত নেন- অনৈতিক কাজের অপরাধে নিজের স্ত্রীর চুল ও ভ্রু বিপ্লবকে কাঁটতে হবে এবং দুজনকে গলায় জুতার মালা পরাতে হবে। সেই মোতাবেক বিপ্লব কাজটি করে।’

এ ব্যাপারে হাটফাজিলপুর পুলিশ ক্যাম্পের উপপরিদর্শক (এসআই) ফারুক হোসেন জানান, গত বুধবার রাতে অনৈতিক কাজের অভিযোগে দুজনকে একই ঘরে আটক রাখার বিষয়ে জানতে পারেন। তাদেরকে ক্যাম্পে সোপর্দ করার কথা জানান তিনি। কিন্তু গ্রামবাসী তাকে জানান উভয়ের অভিভাবকদের কাছে তাদেরকে তুলে দেওয়া হবে। পরে গতকাল বৃহস্পতিবার ওই ঘটনার একটি ভিডিও তিনি ফেসবুকে দেখতে পান। এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ তাদের কাছে আসেনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.